Categories
কলকাতা রাজ্য হোম

করোনা সংক্রামিত হটস্পটগুলিকে সিল করার জোরদার প্রস্তুতি নবান্নে

নবান্ন, পশ্চিমবঙ্গ সরকার প্রধান কার্যালয়

নিজস্ব প্রতিনিধি : – গত  25 মার্চ থেকে কেন্দীয় সরকারের নির্দেশে চলছে 21 দিনের লকডাউন। তার মধ্যে এবার রাজ্য সরকার কয়েকটি এলাকাকে হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করে সম্পূর্ণ লোকডাউন ঘোষণা করতে চলেছে। শুক্রবার রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা নবান্ন থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে এই কথা জানিয়েছে। ইতিমধ্যেই নবান্নে জোরকদমে  তার তোড়জোড শুরু করে দিয়েছে।

http://www.thekolkatanews.net/এবছর-দাদাসাহেব-ফালকে-পুর/




কোনও একটি নির্দিষ্ট এলাকায় করোনা সংক্রমণ বেশি হলে সেই জায়গাটি হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করা হবে। জানা গিয়েছে, “যাতে সেখান থেকে কোনওভাবে সংক্রমণ দ্রুত ছড়াতে না পারে, তাই সেই এলাকাকে অন্য জায়গা থেকে কয়েকদিন এর জন্য সম্পূর্ণ লকডাউন করা হবে।তার ফলে ওই জায়গায় কেউ ঢুকতে পারবে না কিংবা সেখান থেকে কেউ বেরোতেও পারবেন না।খুব প্রয়োজনে কাউকে বেরোতে হলে এলাকায় ঢোকা কিংবা বেরনোর সময় করা হবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা। এছাড়াও ওই এলাকায় গত কয়েকদিনের মধ্যে কারা আসা যাওয়া করেছেন, তাঁদের একটি তালিকা তৈরি করা হবে। হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত এলাকায় বাড়ানো হবে স্বাস্থ্য পরীক্ষাও। কারও শরীরে কোনও উপসর্গ দেখা দিচ্ছে কি না, সেদিকেও নজরদারি চালানো হবে।”


সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যের ৯-১০টি জায়গা হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করার কথা জানান মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা।যদিও তিনি নিজে মুখে কোনও জায়গার নাম উল্লেখ করেননি। তবে সূত্রের খবর দমদম, সল্টলেকের বেশ কিছু জায়গা, উত্তর ২৪ পরগনার বেশ কিছু অংশ হলদিয়া , কালিম্পং, পূর্ব মেদিনীপুরের ও হাওড়া সম্পূর্ণ লকডাউনের কথা ভাবা হচ্ছে। মুখ্যসচিব আরও জানান, হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করে সম্পূর্ণ লকডাউন করা হলেও সাধারণ মানুষের  কোনও রকম সমস্যা হবে না। এ বিষয়ে ইতিমধ্যে নানা পরিকল্পনা করেছে রাজ্য সরকার। যে এলাকাগুলিকে হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করা হবে, সেই জায়গাগুলিতে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হবে নিত্য প্রয়োজনীয় দৈনন্দিন সামগ্রী এবং ওষুধপত্র। এমনকি প্রয়োজন হলে রান্না করা খাবার ও প্রয়োজনীয় স্থানে দিয়ে আসা হবে সরকারের তরফ থেকে।
কোনো ব্যাক্তি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে জরুরি কালীন চিকিৎসার সুব্যবস্থা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *