Categories
দেশ রাজ্য হোম

বাংলায় লকডাউন ঠিক ভাবে মানছেনা মমতা সরকার :স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মমতা ব্যানার্জী এবং অমিত শাহ

নয়াদিল্লি : পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যসরকার লকডাউন চলাকালীন করোনার মোকাবিলায় যথেষ্ট কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছে না । রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় লকডাউনের মতো পরিস্থিতিতেও নিয়ম কানুন মানা হচ্ছে না। ফলে করোনা মোকাবিলায় বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে। এমনই এক  অভিযোগ জানিয়ে মমতা সরকারকে চিঠি দিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।গত শনিবার রাজ্য প্রশাসনের কাছে এক চিঠি এসে পৌঁছয়।এই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে এই লকডাউনের মতো পরিস্থিতে রাজ্যের বহু জায়গায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যে সকল ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন ছিল তা অনেকাংশে নেওয়া হয়নি।

বাংলার বিভিন্ন জায়গায় যেমন  নারকেলডাঙ্গা, তোপসিয়া,রাজাবাজার,মেটিয়াবুরুজের মতো এলাকায় লকডাউন বা সোশ্যাল ডিসট্যান্স কোনওভাবেই মেনে চলা হয়নি। ইচ্ছামত রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে জামায়েত হয়েছে । এই রকম কঠিন পরিস্তিতিতে রাজ্য পুলিশ প্রশাসন কীভাবে নির্বিকার ছিল, সে বিষয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে চিঠিতে। অন্যদিকে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার উদ্দেশে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতারা রেশন বিলির নামে ব্যাপক জমায়েতর সৃষ্টি  করছেন, তা একেবারেই সমর্থনযোগ্য নয় বলে আশঙ্কা করছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন, যে মুখ্যমন্ত্রী যেন গোটা বিষয়টি পর্যালোচনা করে নজরদারি বাড়াক এবং গোটা বিষয়টির ওপর কড়া পদক্ষেপ নিক। এদিকে, রাজস্থানের ভিলওয়াড়া মডেলের পথে হেঁটে গোটা রাজ্যকেই সিল করার কথা ভাবছে প্রশাসন।

ইতিমধ্যে  সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্যের সাতটি জেলায়  ৯-১০টি জায়গা হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করার কথা জানান মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা।যদিও তিনি নিজে মুখে কোনও জায়গার নাম উল্লেখ করেননি। তবে সূত্রের খবর দমদম, সল্টলেকের বেশ কিছু জায়গা, উত্তর ২৪ পরগনার বেশ কিছু অংশ হলদিয়া , কালিম্পং, পূর্ব মেদিনীপুরের ও হাওড়া সম্পূর্ণ লকডাউনের কথা ভাবা হচ্ছে। মুখ্যসচিব আরও জানান, হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত করে সূত্রের খবর রাজ্যের সাতটি জেলায় বেশ কিছু হটস্পট চিহ্নিত করা হয়েছে।নির্দিষ্ট ভাবে কোন এলাকা এই তালিকায় আসতে চলেছে, তা আগে থেকে বলা যাচ্ছে না।জরুরি পরিষেবা ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ছাড়া আর কেউ বা কোনও জিনিস সেই এলাকায় যাতে না ঢুকতে পারে, তা নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হতে পারে। তবেই একমাত্র করোনার ছড়িয়ে পড়া ঠেকানো যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। শুক্রবার রাজ্যের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা বলেন রাজ্যে কোনও আক্রান্তের নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না। আতঙ্ক ও গুজব ছড়িয়ে পড়া রুখতেই এই সিদ্ধান্ত।

অন্যদিকে ভারতে গত 24 ঘন্টায় আক্রান্তের সংখ্যা 58 জন বেড়ে 8504 জন হয়েছে এবং মৃতের সংখ্যা 1 জন বেড়ে 289 জন, করোনা থেকে মুক্তি পেয়েছে 276 জন। এর মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের আক্রান্তের সংখ্যা 110 এবং মৃতের সংখ্যা 5, করোনা মুক্ত হয়েছে 19 জন।